শিরোনাম
Home >> দূনতি >> আক্কেলপুরে সুদের রমরমা ব্যবসা ভূক্তভোগীরা প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমে দুদকের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

আক্কেলপুরে সুদের রমরমা ব্যবসা ভূক্তভোগীরা প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমে দুদকের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

স্টাফ রিপোর্টারঃনিরেন দাস
জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুর উপজেলাটি জেলা সদরের নিকটবর্তী একটি উপজেলা। এ উপজেলার সচ্চল পরিবারের অনেকেই অবস্থান করেন জেলা শহর সহ পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন বড় বড় শহরে। উপজেলায় ব্যবসা-বাণিজ্যের তেমন কোন সুযোগ না থাকলেও সুদের রমরমা ব্যবসা প্রচলিত রয়েছে দীর্ঘদিন যাবৎ। যা এখন চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে।
প্রবাদে আছে সুদের সাথে দৌঁড়ের ঘোরাও চলতে ব্যর্থ হয়। তারই বাস্তব প্রমাণ আক্কেলপুর উপজেলায় আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ হয়ে যাওয়া তথাকথিত প্রভাবশালী কিছু ব্যক্তি। সুদের ব্যবসায়ীরা সাদা স্ট্যাম্পের উপর স্বাক্ষর নিয়ে ব্ল্যাকমেইল এর মাধ্যমে বিপুল পরিমাণের অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। শুধু স্ট্যাম্পেই থেমে নেই তারা ব্যাংকের চেক বই বন্ধক নিয়ে রমরমা সুদের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। সুদ সহ আসল দিতে না পেরে এখন পর্যন্ত অনেকেই শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের শিকার সহ আত্মহত্যাও করেছেন এ উপজেলায়। কতিপয় মাতাব্বররূপী দালালদের মাধ্যমে তারা দরবার শালিস করে সাধারণ মানুষ কে সর্বশান্ত করে দিচ্ছে।
উক্ত দরবার শালিসে দালালেরা সুদের টাকা আদায় করার পরে তাদেরও একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ লভ্যাংশ থাকে বলে জানা যায়। আক্কেলপুর উপজেলার সরকারি চাকুরীজীবী থেকে শুরু করে দরিদ্র কৃষক পর্যন্ত আজ সুদের ব্যবসায়ীদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে ভিটেমাটি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।
ভূক্তভোগীরা হলেন, সোনামুখির গোনীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আবু বক্কর সিদ্দিক, আক্কেলপুর পৌর সদরের সোনামুখির বাসিন্দা শ্রমিক আঃ জলিল, কলেজ বাজারের কাঠ মিস্ত্রি মোঃ সুমন, পৌর সদরের ট্রাক ড্রাইভার কালু, হাসপাতাল চত্বরের চা দোকানদার নূরুলনবী, বিশিষ্ট ঠিকাদার কেরামত আলী, আক্কেলপুর এফইউ পাইলট সরকারি বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা মুনি, আটো রিকশাচাকল আলমিন সহ অসংখ্য ভুক্তভোগীরা ঠেকাই পড়ে নেয়া আসল টাকা বাদে প্রতিমাসে সুদের টাকা গুনতে হয় ১ হাজারের প্রতি ১ শত টাকা করে এসবস ভুক্তভোগীরা সুদের টাকা দিতে দিতে অসহায় হয়ে পড়ে অনেকেই মোবাইল ফোন ব্যবহার করাও ছেড়ে দিয়েছেন সুদ ব্যবসায়ীদের অত্যাচারে।
এমন অসংখ্য সুদের টাকা নিয়ে বিপাকে পড়া বেশ কয়েকজন ভুক্তভোগীদের সাথে কথা বললে তারা না প্রকাশ না করলেও জানান আমরা এসব সুদ ব্যবসায়ীদের হাত থেকে রক্ষা পেতে বর্তমান আওয়ামী সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুর্নীতির বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযানের অংশ হিসেবে আমরা দ্রুত আক্কেলপুর উপজেলার সুদের ব্যবসায়ীদের তালিকা অর্ন্তভূক্ত করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর মাধ্যমে অভিযান পরিচালনা করে সুদ ব্যবসায়ী ও তাদের সুদের টাকা উত্তোলনকারী দোষী ব্যক্তিদের আইনের আওতায় এনে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিনীত অনুরোধ জানিয়ে দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
অপরদিক দিকে গত ১৬/১৭ নভেম্বর বিভিন্ন জাতীয় ও অনলাইন পত্রিকায় (আক্কেলপুরে দাদন ব্যবসায়ীদের দৌড়াত্ব দিনদিন বেড়েই চলেছে) এ নামের একটি সংবাদ প্রকাশ করার পরে একটি গোপন সংবাদের ভিক্তিতে জানা যায়, আক্কেলপুরের কুখ্যাত দাদন ব্যবসায়ী মোঃ আরিফুল হুদা মাসুম ও কৃষ্ণ কুমার ছোটনের নাম উল্লেখিত থাকাই এবং তাদের বিরুদ্ধের সকল সত্যতা তুলে ধরে সংবাদ প্রকাশ করলে টনকনড়ে তাদের, শুরু হয় দৌড়ঝাঁপ পরিশেষে তারা অর্থের বিনিময়ে উপজেলার শীর্ষ নেতা ও অনলাইন একজন ভুয়া সাংবাদিককে হাতে রেখে তাদের পরামর্শক্রমে সংবাদের এবং প্রতিবেদক আক্কেলপুর উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নিরেন দাসের বিরুদ্ধে জয়পুরহাট জেলা আদালতে মানহানি মামলা করেছেন সুদ ব্যবসায়ী ও ছদ্মবেশী পার্সের দোকানদার মোঃ আরিফুল হুদা মাসুম এ খবরটি বিভিন্ন স্থানে ওই সুদ ব্যবসী মাসুম বলিয়ে বেড়ালে বিষয়টি উপজেলা প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের কানে পৌঁছচ্ছে সকল সাংবাদিকবৃন্দরা উপজেলা প্রেসক্লাবের পক্ষে সুদ ব্যবসায়ী আরিফুল হুদা মাসুদ ও কৃষ্ণ কুমার সাহা ছোটনের বিরুদ্ধে প্রেসক্লাবের প্যাডে লিখিত ভাবে দুর্নীতি দমন কমিশন বরাবর উপরে উল্লেখিত ভুক্তভোগীদের বিষয়ে সঠিক তদন্ত করিলে সকল সত্য বেড়িয়ে আসবে এমন একটি একটি লিখিত অভিযোগ পাঠানোর প্রস্তুতি ইতিমধ্যে হাতে নিয়েছেন উপজেলা প্রেসক্লাব কর্তৃপক্ষরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*