শিরোনাম
Home >> লীড নিউজ >> বরগুনায় স্কুল-ছাত্রীকে ধর্ষণ মামলায় দুই জনকে ১০ বছর কারাদণ্ড

বরগুনায় স্কুল-ছাত্রীকে ধর্ষণ মামলায় দুই জনকে ১০ বছর কারাদণ্ড

বরগুনা প্রতিনিধিঃ- রাজু রায়হান
বরগুনায় ৫ম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রীকে গণধর্ষণ করার অপরাধে সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় দুই কিশোর অপরাধীকে ১০ বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও এক লাখ টাকা করে অর্থদন্ড দিয়েছে আদালত। ধর্ষণের ফলে ওই স্কুলছাত্রীর গর্ভে যে সন্তানটি জম্ম নিয়েছে তার ভরণ পোষণ সরকার বহন করবে।
বৃহস্পতিবার সকালে বরগুনার শিশু আদালতের বিচারক ও জেলা দায়রা জজ মোঃ হাফিজুর রহমান এ রায় ঘোষণা করেন। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন বরগুনা জেলার আমতলী উপজেলার চাওড়া ইউনিয়নের চাওড়া চন্দ্রা গ্রামের আবুল ভদ্দরের ছেলে মোঃ মিরাজ ও একই গ্রামের খোরশেদ চৌকিদারের ছেলে মোঃ সাইমুন। রায় ঘোষণার সময় আসামীরা আদালতে উপস্থিত ছিল।
আদালত সূত্রে জানা যায়, সেই একই গ্রামের স্কুল ছাত্রীর মা ফাহিমা আক্তার ২০১৭ সালের ৭ আগষ্ট আমতলী থানায় অভিযোগ করেন, তার ১৪ বছর বয়সী মেয়ে চন্দ্রা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পঞ্চম শ্রেণিতে লেখাপড়া করে। তার স্বামী মারা যাবার পর দ্বিতীয় বিয়ে করেন। তার মেয়েও তার সঙ্গে থাকে। ওই আসামিরা তার মেয়েকে স্কুলে যাওয়া আসার পথে উত্যক্ত করত।অভিযোগে বলা হয়, প্রথম ঘটনার দিন ২০১৭ সালের ১৫ জানুয়ারি মামলায় বাদীর মেয়ের কাছে অবস্থিত তার বাবা আইয়ূব সিকদারের বাড়িতে যায়। সেই দিন সকাল ৯টায় বাদীর বাবার বাড়িতে কেউ না থাকায় ওই আসামিরা তার নাবালিকা কন্যাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করেন। ধর্ষকরা তাকে প্রানে মেরে ফেলার ভয় দেখালে মেয়েটি কারো কাছে বলেনি।অভিযোগে বলা হয়েছে, এমনিভাবে ওই আসামীরা ভিক্টিমকে বিভিন্ন সময় সুযোগ পেলেই ধর্ষণ করে আসছে। সর্বশেষ ২০১৭ সালের ১০ মার্চ ধর্ষণ করার সময় বাদী টের পায়। এরই মধ্যে ভিক্টিম গর্ভবতী হয়ে যায়। ওই বছর ২৬ জুলাই আমতলীর একটি ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে ভিক্টিমকে পরীক্ষা করলে বাদী জানতে পারেন মেয়েটি ২৬ সপ্তাহের গর্ভবতী।রাষ্ট্র পক্ষের বিশেষ পিপি মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, রাষ্ট্রপক্ষ মামলা প্রমান করতে সক্ষম হয়েছে। ধর্ষণের ফলে ভিকটিমের একটি কন্যা সন্তান হয়েছে। নাম সাকিবা, বয়স দুই বছর।পিপি বলেন, বিচারক তার রায়ে উল্লেখ করেছেন যে ভুমিষ্ট হওয়া শিশু সাকিবার বয়স ২১ বছর বা বিয়ে না হওয়া পর্যন্ত তার ভরণ-পোষণ সরকার বহন করবে।
আসামী মিরাজ বলেন, এ রায়ের বিরুদ্ধে আমরা হাইকোর্টে আপিল করবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*