শিরোনাম
Home >> রাজনীতি >> আশুলিয়ায় রাজনীতিতে এক সৃজনশীল দৃষ্টান্ত কবির হোসেন সরকার

আশুলিয়ায় রাজনীতিতে এক সৃজনশীল দৃষ্টান্ত কবির হোসেন সরকার

  আশুলিয়া প্রতিনিধি :- শাহাদাৎ হোসেন
ঢাকার অদূরে আশুলিয়া একটি ঘনবসতি শ্রমিক অদ্যশিত এলাকা হওয়ায় এই এলাকায় এক সময়  ছিনতাই ঘুম হত্যা সহ বিভিন্ন অপরাধ মুলক কাজ হতো। বর্তমান সরকারের আমলে শ্রমিকদের     জীবনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জীবন মান উন্নয়নে বিভিন্ন পদক্ষেপ হাতে নিয়েছে সরকার তারই ধারাবাহিকতায়       বর্তমান আশুলিয়া থানা যুবলীগ অগ্রনি ভুমিকা পালন করেছেন।এবং সাধারণ মানুষের আস্থাশীল হয়ে উঠেছেন       আশুলিয়া থানা আহ্বায়ক কমিটি। এই ভালো কাজ ও মানুষের কাছে আস্থাশীল হওয়ায়, কিছু   সার্থে লোভী মানুষের    আগাত লাগে সেই  কারনে তাড়া বিভিন্ন অপপ্রচার চালাচ্ছে।  পুর্বে যুবলীগ কমিটি দীর্ঘ  দিন থেকে   কি করেছিলেন  তা সবারই জানা। বর্তমানে  কোন শ্রমিক ভাই বোনেরা আর রাস্তা ঘাটে লঞ্চিত হয় না। তাদের বেতন নিয়ে বাসায় যেতে কোন সমস্যা হয় না। কারন জন নেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে  আশুলিয়া থানা যুবলীগ শ্রমিক ও সাধারণ মানুষের   নিরাপত্তায় নিজেদের বিলিয়ে দেন। কিন্তু কিছু সার্থ লোভি মহল তাদের সার্থ হাসেল না হওয়ায় অপপ্রচার চালাচ্ছেন এমন অভিযোগ করে   কবির হোসেন সরকার বলেন আমি সম্পদের জন্য রাজনীতি করি না আল্লাহর রহমতে আমার বাব দাদার যে সম্পদ রয়েছে   আমি সহ আমার বংস ধর তাদের জীবন পার করতে পারবেন । আমি কখনো কারও কারখানায় কোন দিন চাকুরী করি নি।  আমি কি আসুন আমরা ভালো ভাবে জানি।   আমি মোঃ কবির হোসেন সরকার আশুলিয়ার ইয়ারপুর ইউনিয়ন এ ঐতিহাসিক সরকার পরিবারে আমার  জন্ম। আমার পিতার নাম   মরহুম গিয়াসউদ্দিন সরকার তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর ছিলেন।আমার  দাদা মরহুম সবেদ আলি সরকার তৎকালীন সাভার থানা আওয়ামী লীগের  প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন।  প্রসিদ্ধ আওয়ামী পরিবারের সন্তান আমি ।আমাকে যারা না জেনে বিভিন্ন মন্তব করেন তাড়া আগে আমার সম্পর্কে জানুন।  আমি ছোট্র কাল থেকে আমার      পারিবারিক ঐতিহ্য এখনো  আগলে রেখেছি। আমি  বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একজন সৈনিক।  আমি আমার বাব  দাদার ঐতিহ্য আগলে রেখে আজও আওয়ামী পরিবারের  সাথে আছি থাকবো ইনসআল্লাহ ।
তাই আমার প্রান প্রিয়    সাংবাদিক ভাইদের বলতে চাই আপনারা ভালভাবে খবর নেন যাদের কথায় এসব অপপ্রচার চালাচ্ছেন তাদের পূর্ব পুরুষেরা কোন রাজনীতি করত। এবিষয়ে জানতে চাইলে  ইয়াপুর ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সোহেল সরকার বলেন। আপনারা ভালো ভাবে জানেন । কবির হোসেন    সরকারের পূর্ব পুরুষেরা কি ছিল।তার বাব দাদা যে সম্পদ রেখে গেছেন। সেই সম্পদ  রেখে খেলে তার চৌদ্দ পুরুষ  শেষ করতে পারবেন না। আর গাড়ির, বাড়ির নিয়ে পত্র পত্রিকায় যে সব সংবাদ  প্রকাশিত হচ্ছে। তা শত্রুতা ছাড়া আর কিছুই নয়।  আমি এসকল সংবাদের বিরুদ্ধে  তিব্র নিন্দা ও  প্রতিবাদ  জানাচ্ছি। সেই  সাথে  সাংবাদিক ভাইদের উদ্দেশে করে  বলতে চাই আপনাদের কাজ সত্যটা মানুষের কাছে তুলে ধরা ।আপনারা  টাকার বিনিময়ে  মিথ্যা ও ভিওিহীন সংবাদ প্রচার বন্ধ করুন। তানা হলে মানুষ  আপনাদের উপর আস্থা হারিয়ে ফেলবে।এমন সময় আসবে মানুষ আপনাদের বিশ্বাস ও সন্মান করবেনা।কাজেই আপনারা দিনকে দিন ও রাতকে রাতই বলুন।মানুষ কিন্তু অন্ধ না। তারা জানেন কে সাধু আর কে চোর ।   কবির হোসেন  সরকার দেশের সার্থে কোন দূরর্নীতি বা চাঁদাবাজীতে বিশ্বাসি নয়।  তিনি দলীয় ক্ষমতায় দলের বহির্ভূত কোন কাজে লিপ্ত হন নাই।কোন সন্ত্রাসী কার্যকলাপ,চাঁদাবাজি, টেন্ডার বাজি,, জমি দখল এ সব কার্জকলাপে তার কোন সম্পৃক্ততা আছে এমন কোন প্রমান নাই ।তাই আপনারা স্বার্থ হাসিলের জন্য সত্যকে গলাটিপে হত্যা করবেন না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*