শিরোনাম
Home >> লীড নিউজ >> সাতক্ষীরার ২০ লাখ মানুষ তিন দশক জলাবদ্ধতায় -‘বিপন্ন নদী, বিপন্ন জনজীবন’ গোল টেবিল বৈঠক

সাতক্ষীরার ২০ লাখ মানুষ তিন দশক জলাবদ্ধতায় -‘বিপন্ন নদী, বিপন্ন জনজীবন’ গোল টেবিল বৈঠক

সাতক্ষীরা প্রতিনিধিঃ-মোঃ খলিলুর রহমান
দেড়শ’ কিলোমিটারের বেতনা নদী এখন ছয় কিলোমিটারে এসে কোনোমতে টিকে রয়েছে। ৩০ কিলোমিটারের মরিচ্চাপ নদী কপোতাক্ষ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে চার কিলোমিটারে এসে মৃত্যুর প্রহর গুনছে। সাতক্ষীরার এই দুই নদী এখন বদ্ধ জলাধারে পরিনত হয়েছে। এরই মধ্যে অস্তিত্ব হারিয়েছে সাতক্ষীরার আদি যমুনা নদী। জেলার পলিজমা এসব নদ নদীর দুই
তীরে বসবাসকারী ২০ লাখ মানুষ গত তিন দশক ধরে জলাবদ্ধতার শিকার হচ্ছেন। তারা পরিবেশ ও তাদের জীবিকা হারিয়ে ফেলছেন।সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক গোলটেবিল বৈঠকে এসব ভয়ংকর তথ্য তুলে ধরে বক্তারা বলেন যথাযথ নদী
ব্যবস্থাপনা না থাকায় জীবনযাত্রা কঠিন হয়ে পড়েছে। তাদের প্রধান উপজীব্য ধান মাছ পশুপালন এবং বসতিও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

এখন ‘বিপন্ন নদী, বিপন্ন জনজীবন’ এ কথা উল্লেখ করে গোলটেবিল বৈঠকে বলা হয় আগামিতে এ অঞ্চলে স্বাভাবিক বসতি থাকবে কিনা তা নিয়ে শংকিত
জনগণ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এখনই ব্যবস্থা না নেওয়া হলে বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণ পশ্চিমের এ অঞ্চল বসবাসের অনুপযোগী এমনকি পরিত্যক্তও হতে পারে।
বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার যৌথ উদ্যোগে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত জলাবদ্ধতা দুরীকরণে বেতনা ও মরিচ্চাপ অববাহিকার নদী ব্যবস্থাপনা
শীর্ষক গোল টেবিল বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব সভাপতি অধ্যক্ষ আবু আহমেদ। বৈঠকে জানানো হয় জেলার সব নদ নদীতে এখনও রয়েছে হাজার হাজার নেট পাটা। এসব নদীর পাড়েই গড়ে তোলা হয়েছে ইটভাটা। দখলকৃত নদী চরে নোনা পানি তুলে অপরিকল্পিত চিংড়ি চাষের কারণে এলাকায় পরিবেশগত ভারসাম্য বিনষ্ট হয়েছে। কৃষি ফসল নষ্ট
হয়ে যাচ্ছে। গাছপালা মরে যাচ্ছে। নদীর যেখানে সেখানে অপরিকল্পিত স্লুইসগেট স্থাপন করে পানি প্রবাহকে বাধাগ্রস্থ করা হয়েছে উল্লেখ করে তারা বলেন মরিচ্চাপ নদীর পানি এখন আর কপোতাক্ষে প্রবাহিত হয় না। মানুষ পায়ে হেঁটে বেতনা ও মরিচ্চাপ নদী পার হয়। ইছামতির শাখা নদী কাকশিয়ালি, সাপমারা, লাবণ্যবতীও মরণাপন্ন অবস্থায় চলে গেছে। এসব নদী
তীরের মানুষ ভুগছে জলাবদ্ধতার যন্ত্রণায়। তারা হারিয়েছেন তাদের আদি পেশা, কুটির শিল্প, গবাদি পশুপালন ও বনায়ন। তাদের বাড়িঘর বারবার ভাঙ্গনের কবলে পড়েছে। উৎপাদনহীনতার কারণে খাদ্য নিরাপত্তার মুখেও পড়ছেন তারা।
গোলটেবিল বৈঠকে আরও বলা হয় সুন্দরবনের নদ নদী ভরাট হয়ে আসছে। ফলে অতিমাত্রার বৃষ্টি ও দুর্যোগের কারণে সৃষ্ট জলোচ্ছ্বাসের তীব্রতা আছড়ে পড়ছে উপকূল ভাগের নদী খাল জনপদে। উপকূলীয় বাঁধ বারবার ভেঙ্গে যাচ্ছে। সৃষ্টি হচ্ছে ভাঙ্গন, দেখা দিচ্ছে জলাবদ্ধতা। বৈশ্বিক উষ্ণতার কারণে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। একই সাথে ঝড় বন্যা
জলোচ্ছ্বাসের মতো দুর্যোগ দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়ায় জনজীবন লন্ডভন্ড হয়ে যাচ্ছে। গত তিন দশক ধরে তারা এসব যন্ত্রণায় ভুগছেন। বক্তারা বলেন নদী খননই এখন প্রধান কাজ। কেবল খনন কাজই যথেষ্ট নয় জানিয়ে তারা বলেন
একই সাথে জোয়ারাধার সৃষ্টি করতে না পারলে খনন ফলপ্রসূ হবে না। সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি এবং জলোচ্ছ্বাস রোধে উপকূলীয় বাঁধ আরও উঁচু টেকসই এবং মজবুত করতে হবে নদী পাড়ের অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ
করতে হবে। জেলার সব নদ নদী পুনরুদ্ধার করে সচল ও স্বাভাবিক করতে পারলেই সমস্যার হতে পারে জানিয়ে তারা বলেন এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে একটি স্মারক লিপি পেশ করা হবে। পরিবেশ প্রতিবেশ জীবন
জীবিকা রক্ষায় জনগনকে আরও সচেতন হবার আহবান জানানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*