শিরোনাম
Home >> লীড নিউজ >> জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে আ”লীগের গ্রুপিং চমর পর্যায়ে একদিকে সমাবেশ অন্যদিকে সংবাদ সম্মেলন।

জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে আ”লীগের গ্রুপিং চমর পর্যায়ে একদিকে সমাবেশ অন্যদিকে সংবাদ সম্মেলন।

স্টাফ রিপোর্টারঃ- নিরেন দাস।
গত ১০ এ মার্চ অনুষ্ঠিত হয় আসন্ন পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচন-১৯ উক্ত নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোকসেদ আলী মন্ডল ও আনারস মার্কা প্রতীক নিয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে লড়াই করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সালাম আকন্দ। উক্ত নির্বাচনের শুরু থেকেই এ উপজেলায় সৃষ্টি হয় আওয়ামীলীগের মধ্যে দুই গ্রুপের গ্রুপিং লড়াই যা দিন দিন চরম পর্যায়ে এসে দাঁড়িয়েছে। নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোকসেদ আলী মন্ডল হলেও এ গ্রুপিং এর লড়াই টি সেই শুরু থেকেই এখন অবধি চলছে আক্কেলপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসর বনাম উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সালাম আকন্দের গ্রুপিং লড়াই।
সেই গ্রুপিং এর সূত্রপাত ধরে দীর্ঘ কয়েকমাস কাঁধা ছোড়াছুড়ির পর বর্তমানে চরম পর্যায়ে পৌছে গেছে এ গ্রুপিং লড়াই এর ফলে ২৪ শে সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার বিকেল ৪ টায় আক্কেলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্বরে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র গোলাম মাহফুজ অবসর চৌধুরীর বিরুদ্ধে এক প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় উক্ত সমাবেশে পৌর মেয়রের কুশ পুত্তলিকা দাহ সহ তাকে উপজেলা থেকে অবাঞ্চিত ঘোষনা করলেন আওয়ামলীগের একাংশের নেতাকর্মীরা।
অপরদিকে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক, পৌর মেয়র গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসর,উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোকসেদ আলী মাস্টার,উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি দেলোয়ার হোসেন, যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক,আনোয়ারুল ইসলাম বাবলু, আতিকুর রহমান মিঠু, উপজেলা যুবলীগ সভাপতি রানা চৌধুরী,সাবেক জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এমএম ইসলাম বিটু, মহিলা যুবলীগের সভানেত্রী স্বপ্না চৌধুরী সহ উপজেলা ও পৌর আওয়ামীলীগ,যুবলীগ ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের নিয়ে জয়পুরহাট জেলা প্রেসক্লাবে তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগের প্রতিবাদ জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন।
এতে করে স্থানীয় আওয়ামীলীগের মধ্যে এ দলীয় গ্রুপিং এর সৃষ্টির ফলে বর্তমানে চরম পর্যায়ে উত্তেজনাও বিরাজ করছে। যার ফলে যে কোন মুহূর্তে বড় ধরণের সংঘর্ষের রুপ নিতে পারে বলে ধারনা করছেন স্থানীয় তৃনমূল পর্যায়ের নেতৃবৃন্দরা।
জানা গেছে, আক্কেলপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম আকন্দের বিরুদ্ধে পৌর মেয়র অবসর চৌধুরী (২১ শে সেপ্টেম্বর) এক নারী কে দিয়ে আক্কেলপুর থানায় মিথ্যা যৌন নিপীড়ন মামলা করার চক্রান্ত করেন বলে অভিযোগ তুলে মেয়রের বিরুদ্ধে চেয়ারম্যানের পক্ষের অবস্থান নেয়া  আওয়ামলীগের একাংশের নেতাকর্মীরা এ প্রতিবাদ সমাবেশ করেন।
আক্কেলপুর উপজেলা আওয়ামলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা সাদেকুর রহমান সাদেকের সভাপতিত্বে, প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্যে রাখেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান,উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সালাম আকন্দ, জেলা আওয়ামীলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক,রুকিন্দীপুর ইউপি চেয়ারম্যান আহসান কবীর এ্যাপ্লব, জেলা আওয়ামীলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মাহফুজা সুলতানা মলি, জেলা পরিষদের সদস্য ও পৌর আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক আব্দুর রহীম স্বাধীন মাস্টার আক্কেলপুর উপজেলা মহিলা আওয়ামলীগের সাধারন সম্পাদক আছিয়া খানম সম্পা সহ আরো অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।
সমাবেশে বক্তারা অভিযোগ তুলে বলেন, পৌর মেয়র অবসর চৌধুরী আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের বিভ্রান্ত করার চক্রান্ত করছেন তিনি আওয়ামলীগের পদ-পদবী পেয়ে শুন্য অবস্থা থেকে দূর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে আজ কোটিপতি হয়েছেন, বিলাসবহুল রাজপ্রসাদে ঘুমান, একাধিক বাড়ি ও দামী গাড়ি সহ নামে-বেনামে অঢেল সম্পদ বানিয়েছেন। বক্তারা আরও বলেন তিনি নিয়োগ বানিজ্য, অবৈধ অস্ত্র ব্যাবসা, আধিপত্য বিস্তারের মাধ্যমে নেতাকর্মীদের ভয়ভীতি প্রদর্শণ, তার গাড়ির চালক ও চাচাত ভাই মাদক সহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে আটক হয়েছিল এ ছাড়া, গত ১০ এ মার্চ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোকসেদ আলী মাষ্টার, বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম আকন্দের কাছে পরাজিত হলে এ অবসর চৌধুরী তিনি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সহ দলীয় নেতাকর্মীদের উপর প্রচন্ড ক্ষিপ্ত হয়ে নানা চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র করতে থাকেন। যে চক্রান্তের ধারাবাহিকতায় ২১ শে সেপ্টেম্বর উপজেলা চেয়ারম্যান সত্তরোর্দ্ধ বৃদ্ধ আব্দুস সালাম আকন্দের বিরুদ্ধের এক নারীকে দিয়ে ষড়যন্ত্র মূলক মিথ্যা যৌন নিপীড়নের মামলা করিয়ে ষড়যন্ত্র করেন, গত (২৩ শে সেপ্টেম্বর) ওই নারী সংবাদ সম্মেলনে জানান পৌর মেয়র অবসর চৌধুরী তাকে ওই মামলা করাতে বলেন।
এ বিষয়টি গনমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে চেয়ারম্যান পক্ষের আওয়ামীলীগের একাংশের নেতাকর্মীদের আয়োজনে এ প্রতিবাদ সমাবেশ শেষ মুহূর্তে মেয়রের এ ঘৃন্য কাজ করা সহ তার সকল অপকর্মের কারনে তাকে থেকে আক্কেলপুর থেকে অবাঞ্চিত করা হলো বলে বক্তারা জানান।
অনুষ্ঠান শেষে সন্ধায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্বরে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র গোলাম মাহফুজ অবসর চৌধুরীর কুশ-পুত্তলিকা দাহ করেন চেয়ারম্যান পক্ষের নেতাকর্মীরা।
পরে আওয়ামীলীগ নেতা পৌরসভার মেয়র গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসরের সাথে বিষয়টি নিয়ে যোগাযোগ করলে তিনি জানান তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ মিথ্যা, এবং ওই নারীকে আমি চিনি না, ওই নারী যখন থানায় মামলা করলো তখন গণমাধ্যমে একটি সংবাদ প্রকাশ করেন সাংবাদিক ভাইয়েরা যে সংবাদটি দেখার পর ওই নারীকে ওনারাই প্রথমে চরিত্রহীন বলে গলাগলি করলেন,এখন দেখুন তারাই ওই নারীকে দেবী বানিয়েছেন এখন আপনারই বলুন আসলে কারা কার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে, প্রতিবাদ সমাবেশ বিষয়ে তিনি জানান যারা সমাবেশ করেছেন তারা যদি আওয়ামীলীগের রাজনীতিকে বিশ্বাস করেনা বলেই তারা শুরু থেকেই নৌকা মার্কার বিরুদ্ধে অবস্থান করেছেন এখনো নৌকা মার্কার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে আওয়ামীলীগের পদে থাকা নেতার বিরুদ্ধে এমন মিথ্যা ভিক্তিহীন প্রতিবাদ সমাবেশ করে আমাকে শুধু অপমানিত করা হয়নি এবং আওয়ামীলীগের আদর্শ কে অপমান তারা করেছেন, তিনি আরও জানান ওই সমাবেশে হাতে গোনা কিছু আওয়ামলীগ নেতাকর্মী থাকলেও বেশিরভাগ বিএনপি ও জামাত-শিবির নিয়ে ওই সমাবেশ করেছেন তারা। তিনি আরও জানান যারা আমার সম্পত্তি, গাড়ি বাড়ি হয়েছে বলে বক্তব্য দিয়েছেন একবার তাদের দিকে তাকিয়ে দেখুন তারা অতীতে কি ছিলেন আর এখন কিভাবে পাথর দিয়ে বাড়ি বানিয়েছেন, কিভাবে তারা জিরো থেকে রাতারাতি হিরো হয়েছেন,তাদের সম্পর্কে যাচাই করে দেখুন তারা শীর্ষ নামধারী মাদক ব্যবসায়ীদের আশ্রয় দিয়ে রেখেছেন,আওয়ামীলীগের পরিচয়ের অসহায় মানুষদের উপর অন্যায় ভাবে বিচার করে, এমনকি তারা তৃনমূল নেতাদের ন্যায্য হক মেরে খায়, আওয়ামীলীগ সরকারের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা হাতে গোনা ওরা কয়েকজন নেতারাই ভোগ করছেন, এদের এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে আমি যখন ঝিমিয়ে পড়া আওয়ামীলীগকে চাঙ্গা করেছি, তাদের গোপনে সুবিধা ভোগের বিষয় গুলো যখন তৃনমূল নেতাকর্মীদের বুঝাতে লেগেছি ঠিক সেইসময় তারা অর্থের বিনিময়ে ভাড়া টিয়া লোকজন এনে বিদ্রোহীর পক্ষে আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে আওয়ামীলীগের নাম ব্যবহার করে প্রতিবাদ সমাবেশ করছেন তারা। মেয়র আরও বলেন ওরা ক্ষমতার চেয়ারে বসার নেশায় পাগল হয়ে উঠেছে কিন্ত আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আওয়ামীলীগ জননেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আদর্শ কে বিশ্বাস করি তিনি কখনোই এদের মতো অন্যায়কারীদের দলে আশ্রয় দিবেন না বলে মেয়র তার সকল অভিযোগ অশিকার করে সঠিক তদন্ত করে যথাযোগ্য সাংগঠনিক ভাবে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট বিনীত আহবান জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*