শিরোনাম
Home >> লীড নিউজ >> পটুয়াখালী পুলিশ সুপারের নির্দেশে এতিমের চুরি হওয়া অটো রিক্সা উদ্ধার; গ্রেফতার ৩

পটুয়াখালী পুলিশ সুপারের নির্দেশে এতিমের চুরি হওয়া অটো রিক্সা উদ্ধার; গ্রেফতার ৩

পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ এম.জাফরান হারুন 

পটুয়াখালী জেলা পুলিশ সুপারের নির্দেশে ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) শেখ বিল্লাল হোসেনের নেতৃত্বে এতিম ছেলে সোহাগের চুরি হয়ে যাওয়া অটো রিক্সাটি উদ্ধার এবং চোর চক্রের ৩ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ।

ঘটনা অনুসন্ধানে জানাগেছে, এতিম ছেলে সোহাগ হাওলাদার তার সব সম্বল বি‌ক্রি ক‌রে জী‌বিকা নির্বা‌হের জন্য এক‌টি অ‌টো রিকশাটি ক্রয় ক‌রে সংসার চালাতো এতে বেশ ভা‌লোই কাট‌ছিল তার সংসার। ঘটনার দিন গত ৭ ই সেপ্টেম্বর সকাল আনুমানিক ৬ টার সময় ড্রাইভার মহিবুল হাসান যাত্রী বহনের উদ্দেশ্য অটো রিক্সাটি নিয়ে হেতালিয়া বাধঁঘাট এলাকায় যায়। সেখান থেকে ২ জন অজ্ঞাত লোক যাত্রী কাচামালের ব্যবসায়ী পরিচয়ে নিউমার্কেট থেকে কাচাঁ মাল আনার জন্য অটোর ড্রাইভারকে ২৫০ টাকায় ভাড়া ঠিক করে নিয়ে আসে নিউমার্কেট এসে কৌশলে ড্রাইভারকে নাস্তা করানোর নাম করে বিস্কুটের ভিতরে নেশা জাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে অচেতন করে অটো রিক্সা ও মোবাইল ফোন নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে চুরির ঐ মোবাইল ফোন থেকে গাড়ির মালিক সোহাগকে কল করে পঞ্চাশ হাজার টাকা দিলে তারা অটো রিক্সাটি ফেরত দিবে বলে জানায়।গত বৃহস্পতিবার ১২ সেপ্টেম্বর গাড়ির মালিক পটুয়াখালী জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) শেখ বিল্লাল হোসেন কে জানানে তিনি বিষয়টি আমলে নিয়ে পটুয়াখালী জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মইনুল হাসান পিপিএমকে ঘটনাটি জানান তিনি তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা গ্রহন করে এবং অটো রিক্সাটি উদ্ধার ও আসামী গ্রেফতারের জন্য কঠোর নির্দেশ প্রদান করেন।পুলিশ সুপারের নির্দেশনা পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) কৌশল অবলম্বন করে চোর চক্রের সঙ্গে কথা বলে তাদের কাছ থেকে বিকাশ নম্বর নিয়ে পাঁচ হাজার টাকা বিকাশ ও করেন এবং বাকি ৪৫ হাজার টাকা বিকাশ করার কথা বলে সময় ক্ষেপন করে চোর চক্রের সাথে যোগাযোগ ঠিক রেখে তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে চোরদের অবস্থান সনাক্ত করেন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ বিল্লাল হোসেনের নেতৃত্বে ডিবি পুলিশের একটি দল বরিশাল শহরের ফলপট্টি এলাকায় টানা ছয় ঘণ্টা অবস্থান করে অভিযান পরিচালনা করে। বরিশালের পোর্ট রোডস্থ গোল্ডেন ইন আবাসিক হোটেল হতে চোর চক্রের ২ সদস্যকে গ্রেফতার করে, গ্রেফতারকৃতরা ১.সহিদ সিপাহী (৪০), ২.কালাম ফকির (৪০),এসময় তাদের কাছ থেকে ১০ টি ডিসোপ্যান-২ নেশা জাতীয় ট্যাবলেট অটো রিক্সা বিক্রির নগত ৩২,০০০ হাজার টাকা ও চুরি যাওয়া মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করা হয়।জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানায় অটো রিক্সাটি বাউফলে বিক্রি করেছে এবং জনৈক সোলায়মান হোসেন (৫০) এর গ্যারেজে লুকিয়ে রাখা হয়েছে।উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে ডিবি পুলিশের আভিযানিক দলটি পটুয়াখালীর বাউফলের উদ্দেশ্যে রওনা করে। রাত ৩টার সময় বাউফল পৌরসভার বিলবিলাস এলাকার সোলায়মান হোসেন এর গ্যারেজ হতে চুরি যাওয়া অটো রিক্সাটি উদ্ধার করা হয় এবং আসামী সোলায়মান হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়।এবিষয়ে পটুয়াখালী ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাকির হোসেন বলেন, আসামীদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় একাধিক মামলা ও রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*