শিরোনাম
Home >> লীড নিউজ >> ক্ষেতলালে বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধনী খেলায় উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বাধাঁ দেয়ার অভিযোগ

ক্ষেতলালে বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধনী খেলায় উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বাধাঁ দেয়ার অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টারঃ- নিরেন দাস
জয়পুরহাটের  ক্ষেতলাল উপজলা প্রশাসন কর্তৃক আয়োজিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান জাতীয় গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট (অনুর্ধ-১৭) ২০১৯ এর উদ্বোধনী খেলা (৬-এ সেপ্টম্বর) শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০ টায় ক্ষেতলাল সরকারি পাইলট উচ্চবিদ্যালয়ে ও কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত হয়ে। উদ্বোধনী খেলায় অংশগ্রহণ করেন উপজেলার আলমপুর ইউনিয়ন পরিষদ বনান মামুদপুর ইউনিয়ন পরিষদ। খেলায় আলমপুর ইউনিয়ন পরিষদ ট্রাইব্রেকারে ৩-১ গোলে বিজয়ী হন।
এ খেলাকে কেন্দ্র করে ক্ষেতলাল উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মোস্তাকিম মন্ডলের বিরুদ্ধে মাইক ও মাইক্রোফোন ভেঙ্গে ব্যানারে তার নাম না রাখায় খেলায় বাঁধা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।
অভিযোগের ভিক্তিতে প্রত্যক্ষদর্শীদের সূত্রে জানা গেছে, (৬-এ সেপ্টেম্বর) শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০ ঘটিকায় ক্ষেতলাল উপজলা নির্বাহী অফিসার খেলার শুভ উদ্বোধন শেষ করে মঞ্চে বসে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ, মুক্তিযাদ্ধা কমান্ডার, থানার ওসি তদন্ত সহ ইউপি চেয়ারম্যান এবং বিভিন্ন সরকারি কর্মকর্তা ও সুধীজনদের নিয়ে নির্বাহী অফিসার খেলাটি শান্তিপূর্ণ পরিসরে উপভোগ করতে থাকেন। খেলাটি শুরুর প্রায় ২০ মিনিট পর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাকিম মন্ডল খেলাটি চলমান অবস্থায় মাঠের মধ্য দিয়ে তাঁর নিজস্ব জীপগাড়িতে তাহার সাঙ্গপাঙ্গ নিয়ে মঞ্চের সামনে এসে গাড়ী থেকে নেমেই ব্যানারে তাঁর নাম নেই কেন-? এমন উক্তি করে ধারা বর্ণনাকারির হাত থেকে মাইক কেড়ে নিয়ে আছার দিয়ে ভেঙ্গে ফেলে খেলা বন্ধ করতে বলেন। এমন ঘটনা ঘটলেও নির্বাহী অফিসার খেলাটি চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিলে খেলাটি চলতে থাকে। অতঃপর উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তাকিম মন্ডল গাড়িতে উঠে লেখার মাঠ ত্যাগ করেন। এমন নেক্কার জনক ঘটনায় উপস্থিত সশ্লিষ্ট সকলেই হতবম্ব এবং বিষ্মিত হয়ে পড়েন বলে জানা যায়।
এ বিষয়টি নিয়ে ক্ষেতলাল উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আরাফাত রহমানের সাথে কথা বললে তিনি জানান, সারা দেশের ন্যায় জাতীয় টুর্নামেন্ট হিসেবে ক্ষেতলাল উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে (৬-এ সেপ্টেম্বর) জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট (অনুর্ধ-১৭) -১৯ উদ্বোধনী খেলাটি শুরু করার ২০ মিনিট পর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাকিম মন্ডল মাঠে প্রবেশ করে মঞ্চে এসে ব্যানারে তার নাম দেখতে পেয়ে কালক্ষেপণ করে চরম ক্ষিপ্ত হয়ে চলমান খেলার ধারাবর্ণকারির হাত থেকে মাইক্রোফোন কেড়ে নিয়ে ভেঙ্গে ফেলে খেলা বন্ধ রাখতে বলেন তিনি। ব্যানারে চেয়ারম্যানের নাম কেন রাখা হয়নি এ বিষয়ে জানতে চাইলে নির্বাহী অফিসার আরও জানান বর্তমানে এখানে রাজনৈতিক দ্বিধাদ্বন্দ্ব ও প্রতিহিংসা রয়েছে যদি চেয়ারম্যান নাম ব্যবহার করা হয় তবে সিনিয়র রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দদের নাম রাখতে হবে। তবুও আমি খেলাটির বিষয় নিয়ে বারবার উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান কে নিয়ে মিটিং করেছি সেখানে চেয়ারম্যান সাহেব কোন কিছুই বলেন নাই,পরে আমি জেলা প্রশাসক স্যারের সাথে কথা বলে এবং স্যারের সিদ্ধান্তক্রমে ব্যানারে প্রধান অতিথি হিসেবে শুধু মাত্র প্রশাসকের নাম ব্যবহার করে খেলাটি শুরু করা হয় যাতে করে রাজনৈতিক কোন প্রতিহিংসা খেলায় না প্রবেশ করে তবুও চেয়ারম্যান এমন নেক্কার জনক ঘটনা ঘটিয়েছেন।
অপরদিকে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাকিম মন্ডলের সাথে কথা বললে তিনি জানান,আমি খেলার মাঠে প্রবেশ করে মঞ্চে বসে শান্তিপূর্ণ ভাবে খেলা উপভোগ করছিলাম এমন সময়ে মাইকে আমার নাম ঘোষণা করা হলে আমি মাইক্রোফোন টি কেড়ে নিয়ে বলি আমার নাম ঘোষণা করার দরকার নেই বলে আমি মাঠ থেকে চলে আসি এ বাধিত আর কিছুই লেখার ঘটেনি। তার অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান আমি যে খেলাটি বন্ধ করতে গিয়েছিলাম এ অভিযোগটি পুরোটাই বানোয়াট,মিথ্যা,ভিক্তিহীন বলে তিনি আরও জানান আমি যদি খেলায় বাধাঁ সৃষ্টি করে থাকি তবে খেলাটি শুরু থেকে শেষ হলো কিভাবে বলে চেয়ারম্যান জানান।
পরে বিষয়টি নিয়ে ক্ষেতলাল নির্বাহী অফিসারের অভিযোগ ও চেয়ারম্যানের কথার বরাতদিয়ে জয়পুরহাট জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাকির হোসেনের সাথে কথা বললে তিনি জানান চেয়ারম্যান খেলার মাঠে মাইক,মাইক্রোফোন ভেঙেছেন বা খেলায় বাধাঁ সৃষ্টি করেছিলেন এমন অভিযোগ এখন পর্যন্ত আমার নিকট কেউ অবগত করেনি। তাই আমি এ বিষয়ে কিছুই বলতে পারছি না বলে তিনি আরও জানান আমার জানা মতে আজ জেলায় দুটি খেলা শান্তিপূর্ণ ভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে এবিষয়টি আমি জানি বলে জেলা প্রশাসক জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*