শিরোনাম
Home >> লীড নিউজ >> পটুয়াখালী গলাচিপায় সুপার পদে ভুয়া নিয়োগের  তদন্তে ঢাকার ডিজি ও মাদরাসা বোর্ড পরিদর্শক

পটুয়াখালী গলাচিপায় সুপার পদে ভুয়া নিয়োগের  তদন্তে ঢাকার ডিজি ও মাদরাসা বোর্ড পরিদর্শক

পটুয়াখালী প্রতিনিধি: এম.জাফরান হারুন

পটুয়াখালী গলাচিপার বাঁশবুনিয়া ইসলামিযা আলিম মাদরাসায় জালিয়াতির মাধ্যমে শ্বশুরকে সুপার হিসেবে নিয়োগের অভিযোগে সরেজমিন তদন্তের জন্য প্রতিষ্ঠানে এসেছেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর ঢাকা এর মহা পরিচালকের প্রতিনিধি (ডিজি) ও মাদরাসা বোর্ডের পরিদর্শক মো. হেলাল উদ্দিন।

শনিবার ৩১আগস্ট সকাল ১০টা থেকে সংশ্লিষ্ট অভিযোগের বিভিন্ন কাগজ পত্র যাচাই বাছাই করেছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। তদন্তের স্বার্থে আরো কিছুদিন সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন তারা।এ ঘটনায় মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড ও জেলা শিক্ষা অফিসারের বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেন জমিদাতা সদস্য মো. মো. ফজলুল হক ও স্থানীয় মো. গিয়াস উদ্দিন।

অভিযোগে বলা হয়, আশির দশকে মাদরাসাটি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর ওই বছরই এমপিওভুক্ত হয়। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই মাদরাসাটির সুপার ছিলেন মো. হাফিজুর রহমান। শুরু থেকেই মাদরাসাটির বিভিন্ন পদে সুপারের চার ভাই, শ্যালক ও ছেলের শ্বশুর চাকরি করে আসছেন। এর পর থেকেই ওই সুপারের বিরুদ্ধে মাদরাসায় বিভিন্ন অনিয়ম, দুর্নীতি ও স্বজন প্রীতির অভিযোগ ওঠে।

অভিযোগে আরো বলা হয়, হাফিজুর রহমান মাদরাসাটির সুপার থাকাকালীন অবস্থায়  তার সেজো ছেলে মো. ইলিয়াসকে মাদরাসাটির সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত ঘোষণা করার চেষ্টা করেন। কিন্তু স্বজন প্রীতি ওঠার অভিযোগে এবং বিধিসম্মত না হওয়ায় তার অনুমতি দেয়নি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড কর্তৃপক্ষ। এর পরেও ভূয়া ওই কমিটি দেখিয়ে সুপার ও সভাপতির বাবা হাফিজুর রহমান ২০১৮ সালের ১৫ জুলাই স্থানীয় ‘দৈনিক গণদাবী’ ও ‘দৈনিক সমকাল’ পত্রিকা ফটোকপি করে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জোড়া দিয়ে ‘নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি’ দেখিয়ে হাফিজুর রহমানের সেজো ছেলের শ্বশুর আবুল বশারকে মাদরাসাটির সুপার হিসেবে নিয়োগ দেয়। তবে উল্লিখিত ২০১৮ সালের ১৫ জুলাই সমকাল পত্রিকায় সুপার নিয়োগের কোন বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়নি।

এব্যাপারে জানার জন্য মাদরাসাটির বর্তমান সুপার মো. আবুল বাশার এর ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বর ০১৭১৬৯১২৪৭৬ এবং সভাপতি মো. ইলিয়াস (বিতর্কিত) এর ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বর ০১৯১২২২৮৫৪৫ নম্বরে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে মোবাইল রিসিভ করেননি।

এবিষয়ে এঘটনার তদন্ত কর্মকর্তা বাংলাদেশ সরকার মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর ঢাকা এর মহা পরিচালকের প্রতিনিধি (ডিজি) ও মাদরাসা বোর্ডের পরিদর্শক, মো. হেলাল উদ্দিন মাদরাসার অফিস কক্ষে উপস্থিত স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, যাচাই বাছাই চলছে। কাগজপত্রে কোন জালিয়াতি থাকলে সংশ্লিষ্টের প্রতি আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*