শিরোনাম
Home >> লীড নিউজ >> আত্রাইয়ের ডেপুটি স্পীকার বয়তুল্লাহ্ সেতু মরণ ফাঁদ

আত্রাইয়ের ডেপুটি স্পীকার বয়তুল্লাহ্ সেতু মরণ ফাঁদ

রাণীনগর নওগাঁঃ রাজেকুল ইসলাম

নওগাঁর আত্রাই উপজেলার ডেপুটি স্পীকার মরহুম বয়তুল্লাহ্ সেতু মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। নওগাঁর আত্রাই ও রাণীনগর উপজেলা বাসির যেগাযোগের জন্য সেতু বন্ধনের প্রয়োজনে ২০১২ সালে স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তর রাণীনগর এর উদ্যোগে জামালগঞ্জ-বান্দাইখাড়া নামক স্থানে আত্রাই নদীর উপর সাবেক ডেপুটি স্পীকার মরহুম বয়তুল্লাহ্ সেতু নির্মান করা হয়।

২০১৪ সালের শেষের দিকে জনগণের চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হলেও দীর্ঘদিন থেকে সংস্কার কাজ না করায় আত্রাই ও রাণীনগর অংশের সংযোগ সড়ক মারাত্মক ধ্বংসের সৃষ্টি হয়েছে। পানি কাদা আর গর্তের কারণে চলাচলরত জনগণ ও বিভিন্ন যানবাহন ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। বিশেষ করে আত্রাই অংশের সেতুর পার্শ্বের সংযোগ সড়কে বড় বড় গর্ত ও মাটি ডেবে যাওয়ায় বয়তুল্লাহ্ সেতু এখন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। প্রায় ৯ কোটি ৬ লক্ষ ২৮ হাজার ৪৮৫ টাকা ব্যয়ে সেতুটি নির্মাণ করা হয়।

জানা গেছে, রাণীনগর উপজেলা প্রকৌশলী কার্যালয় ২০১২-১৩ অর্থ বছরে নওগাঁর সড়ক ও জনপদ বিভাগ হতে স্থানান্তরিত ১৭৫ মিটার আরসিসি গার্ডার ব্রিজের নির্মাণ প্রকল্পটি জিওবি তহবিলের আর্থিক সহযোগিতায় রাণীনগর উপজেলা প্রকৌশলীর বাস্তবায়নে গত ১৬ জুলাই ২০১২ইং তারিখে দরপত্রের বিজ্ঞতি প্রকাশের পরে বগুড়া জেলার আদমদিঘী উপজেলার সান্তাহার মহল্লার এস এন্ড এম জেভি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের স্বতাধিকারী মো. সোহেল দরপত্রের শর্ত মোতাবেক জামালগঞ্জ-বান্দাইখাড়া নামক স্থানে আত্রাই নদীর উপরে “ডেপুটি স্পীকার মরহুম বয়তুল্লাহ সেতু” নির্মাণের কাজ পেলে ১০সেপ্টেম্বর ২০১২ইং তারিখে সংশি¬ষ্ট কর্তৃপক্ষ কার্য্য আদেশ দিলে যথা সময়ে সেতুটি নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ করার লক্ষ্যে স্থাণীয় সংসদ সদস্য ইসরাফিল আলম এমপি সেতুটির নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপনের শুভ উদ্বোধন করেন। সেতুটির নির্মাণ কাজ শেষ হলে চলাচলের জন্য আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের আগেই সেতুর উপর দিয়ে হালকা যানবাহনে চড়ে পায়ে হেঁটে লোকজন চলাচল শুরু করে। পরবর্তীতে এই জনপদের বসবাসকারী প্রায় লক্ষাধিক মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থা ও জীবন-যাত্রার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে এই সেতুটি উম্মুক্ত করে দেওয়া হয়। উন্মোক্তের কিছুদিন পর থেকেই আত্রাই অংশের প্রায় ৩শ’ ফিট সংযোগ সড়ক খানা খন্দের কারণে পানি কাদায় একাকার হয়ে পড়ে। এমকি সেতুর সংযোগ সড়কের পশ্চিম অংশের ধ্বস রক্ষা ঠেকাতে সরকারি পর্যায়ে কোনো সহযোগীতা না পেলেও স্থাণীয়রা বাঁশের পাইলিং করে আপাতত রক্ষা হলেও যে কোণ সময় ভারি যানবাহন ব্রীজে উঠতে গেলেই ধ্বসে পড়ার আশংকা রয়েছে। আতংক নিয়েই এই সেতুর উপর দিয়ে চলাচল করছে যানবাহন।
গত দুই মাস আগে সংযোগ সড়কে আত্রাই অংশে একটি সিএনজি গর্তে উল্টে গিয়ে এক যাত্রী নিহত হয়। সেতুতে চলাচলে উপযোগী করতে স্থানীয় চেয়ারম্যানসহ এলাকার বিশেষ ব্যক্তিবর্গ মিলে ইটের রাবিশ ফেলে কোনো মতো চলাচলের উপযোগী করেছে।
এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বললে তারা বলেন, বয়তুল্লাহ সেতুর দুই পার্শ্বের সংযোগ সড়কের যে অবস্থা, অচিরেই এর সংস্কার করা না হলে যে কোন সময়ে ঘটতে পারে বড় ধরণের দূঘৃটনা। সংশি¬ষ্টদের যথাযথ নজরদারির অভাবে যে কোন সময় সড়কের মাটি ধ্বসে যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে যেতে পারে বলে স্থানীয়রা আশংকা করছেন।
এব্যাপারে রাণীনগর উপজেলা প্রকৌশলী সাইদুর রহমার বলেন, ইতো মধ্যেই রাণীনগর অংশের কাজ শুরু হয়েছে, এবং আত্রাই অংশের কাজও এইচবিবি করে কার্পেটিং করে পাকা করা হবে।
রাজেকুল ইসলাম
রাণীনগর, নওগাঁ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*