শিরোনাম
Home >> লীড নিউজ >> মানিকগঞ্জের সিংজুরীতে নববধূকে বাসরঘরে রেখে পালিয়ে গেলো লম্পট স্বামী

মানিকগঞ্জের সিংজুরীতে নববধূকে বাসরঘরে রেখে পালিয়ে গেলো লম্পট স্বামী

আল মামুন ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি মানিকগঞ্জ ॥
মানিকগঞ্জের ঘিওরে নববধূকে বাসরঘরে রেখে পালিয়ে গেলো শফিকুল নামের এক লম্পট স্বামী। গতকাল মঙ্গলবার রাতে ঘিওর উপজেলার সিংজুরী ইউনিয়নের বীরসিংজুরী নতূনপাড়া নামক গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মামাতো ভাই প্রবাসী জুলহাসের(৩০) বউয়ের সাথে পরোকিয়া প্রেমের জেরে ধর্ষণ মামলার আসামী শফিকুল পালিয়েছে নববধূকে রেখে। পাশ্ববর্তী শিবালয় থানার মহাদেবপুর ইউনিয়নের রামনগর গ্রামের মোঃ রফিক মিয়ার মেয়ে রিংকি আক্তারকে গতকাল বিয়ে করে সে। এদিকে এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় নববধূ রিংকি আক্তার জিপিএ ৩.০০ পেয়ে পাশ করেছে। স্থানীয় মহাদেবপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৬নং ওয়ার্ড মেম্বার আলহাজ্ব বলেন কাগজ কলমে মেয়ের যথেষ্ট বয়স হয়েছে। ঘিওর থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায় বীরসিংজুরী নতুনপাড়া গ্রামের আহাম্মদ আলীর ছেলে শফিকুলের(২৩) নামে একটি ধর্ষণ মামলা হয়েছে। আসামীকে ধরতে তার বাড়িতে গেলে তাকে পাওয়া যায়নি বলে জানায় ঘিওর থানার পুলিশ পরিদর্শক(তদন্ত) মোঃ আনিছুল হক।

ধর্ষণ মামলার বাদী রত্মা আক্তার(২৫) জানায়, স্বামী জুলহাস অনুমান দুই বছর যাবৎ সৌদি আরবে থাকে। দুইটি ছেলে সন্তানের মধ্যে বড় ছেলে আলিম(৭) এবং প্রতিবন্ধী ছোট ছেলে নিরব(৪) নিয়ে তাদের ভিটা জমিতে নতুন ঘরদরজা তৈরীর সুবাদে স্বামী জুলহাসের ফুপা আহাম্মদ আলীর বাড়িতে আশ্রয়ে থাকে সে। শফিকুল সম্বর্কে দেবর হয়। সেই সুযোগে দীর্ঘ প্রায় এক বছর ধরে শফিকুল গোপন প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে তার সাথে। শফিকুল তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দীর্ঘ দেড় বছর যাবৎ ধর্ষণ করে আসছে বলে অভিযোগ জানায় রত্মা। পরে গত ৭ মে/২০১৯ তারিখ সন্ধ্যায় রত্মা জানতে পারে শফিকুল অন্যত্র বিয়ে করতে গেছে। কোন উপায় না পেয়ে ঘিওর থানায় শফিকুলের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা করে রত্না আক্তার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*