শিরোনাম
Home >> ফটো গ্যালারী >> চকবাজার ট্রাজেডি! সমাধান কোন পথে?

চকবাজার ট্রাজেডি! সমাধান কোন পথে?

কে এম আতিয়ারুল ইসলাম
চকবাজার ট্রাজেডি পর থেকে দেখছি স্থানিয় বাসিন্দা রাস্তার গাড়ির ঘারে দোষ চাপাতে ব্যাস্ত।রাজনিতিক দল মতের  বিরুদ্ধ দলের মতের দিকে ঠেলে দিয়েই যেনো নিজ দায় মুক্ত হয়ে বাচতে চাইছি। কিন্তু কেন? আমার কোন দায় কি ছিলোনা! আমার কি ছিলো কোন     ব্যার্থতা খুজে কি দেখেছি? 
গত পাঁচটি বছর ধরে যখন বিশ্ব মিডিয়া লাগাতার নক করে বলেছে- 
“ঢাকা বসবাসের অনুপযুক্ত শহর” 
“ঢাকা সবচেয়ে বড় জানজটের শহর” 
“নিরাপত্তার সূচকে ঢাকার অবস্থান সবচেয়ে নিচে” 
তখন আমাদের মন্ত্রীরা বলেছেন- 
“নিউনিউইয়র্কের থেকে ঢাকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা উন্নত”- স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী 
“আকাশ থেকে ঢাকা দেখলে লসএঞ্জেলস মনে হয়”- তথ্যমন্ত্রী। 
“হাতিরঝিলে গেলে মনে হয় প্যারিসে এসেছি”- তথ্যমন্ত্রী। 
অন্যদিকে আমাদের সংবাদমাধ্যম ব্যস্ত হল….. 
“ওয়ার্ল্ডের ৩য় সৎ রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা”  
“শেখ হাসিনা মাদার অব হিউমানিটি” 
“একবিংশ শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী নারী শেখ হাসিনা” 
“টাইম ম্যাগাজিনের হিসেবে ১০০ প্রভাবশালীর তালিকায় শেখ হাসিনা”
দোষটা রাজনীতিবিদেরও না,দোষটা আমাদেরই। মূর্খ, নির্বোধ জনগণ আমরা। আপনি/ আমি/ সরকার/ প্রশাসন কেউ চাই না এরকম ঘটনা ঘটুক । কিন্তু আমরা সবাই মিলেই এর জন্য দায়ী। 
হ্যাঁ….! আমারাই দায়ী,তাই আজকে আমাদের এই পরিনতি। 
-চার বন্ধু মিলে গল্প করছিলো ফার্মেসিতে। আগুনের লেলিহান শিখা দেখে ভিতরেই রয়ে গিয়েছিলো। আগুন নেভার পর সেই ফার্মেসিতে মিললো ৪ টা খুলি।
-স্ত্রী সন্তান সম্ভাবা। আগুন লাগার পর স্ত্রী নামতে পারছিলো না তাই স্বামী ও আর নামে নি। পুড়ে অঙ্গার হলো তিনটি দেহ। 
সন্তান হারানো এক মা কেঁদে কেঁদে বলছে – 
“যা পান, একটু মাংস হলেও, একটু হলেও দেন, একটু!! আমার বাবারে আমি কোলে নিমু। আমার বাবার অনেক সপ্ন ছিল, বিদেশ যাবে। ও নর্থ সাউথ এ পড়ে! আমার বাবারে আমি ডাকলে আসবে তো? যা পান,আমার বাবার, একটু বের করে দেন!!”
-পরিবারের মেয়ের বিয়ের বাজার করতে ভাই গিয়েছিলো পুরান ঢাকায়। থেমে গেলো বিয়ের সানাই। পুড়ে গেলো ভাই! 
হাজারো সপ্ন শেষ হয়ে গেলো এভাবেই!!! 
পুরো দেশ যেখানে শোকে স্তব্ধ। সেখানে সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে ঘোষণা আসে প্রত্যেক মৃতদেহের জন্য ১ লাখ টাকা করে দেওয়া হবে।
“জীবন বাঁচানোর দায়িত্ব নেন। মৃত দেহের মূল্য দেওয়ার দরকার নেই,দয়া করে মানুষের জীবনকে পণ্য বানিয়ে ফেলবেন না”
নগরবাসিদের হঠাৎ নিদ্রাভঙ্গ হয় আচমকা নিমতলি-র বস্তি কিম্বা চকবাজার ট্রাজেডি দেখে।দুদিনেই ভুলে যাই।যেনো গাঞ্জার নেশায়বুদ,।নগরবাসীর কিছু দায়িত্ব আছে। শুধু টাকার নেশায় বুদ হয়ে না থেকে সমাজ রাষ্ট্রের জন্যে কিছু সময় ব্যয় করুন।প্রত্যেক নাগরিক সমাজ পরিবর্তনের দায়িত্ব নিলেই   বাসযোগ্য নগরী হবে, অন্যথায় এমন ট্রাজেডি মাঝামাঝেই ফিরে আসবে নানান রুপে   

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*